অবস্থান/ঠিকানা : কঞ্চিপাড়া ইউনিয়ন, ফুলছড়ি উপজেলা, গাইবান্ধা

ধরন  : নৌবন্দর,দর্শনীয় স্থান

বালাসীঘাট বাংলাদেশের গাইবান্ধা জেলার ফুলছড়ি উপজেলায় অবস্থিত একটি নৌবন্দর ও দর্শনীয় স্থান। যমুনা নদীর পারে অবস্থিত এই ঘটটি রেলওয়ের লোড-আনলোড স্টেশন হিসেবেও ব্যবহার করা হয়।

এই ঘাট বা নৌবন্দরের মাধ্যমে দেশের ভিবিন্ন স্থানসহ বিদেশেও পণ্য পরিবহন করা হয়। ব্রিটিশ শাসনামলে ব্রিটিশরা ফুলছড়ি ঘাটকে তাদের বিভিন্ন পণ্য আনানেওয়ার কাজে ব্যবহার করতেন। ১৯৯০ সালের পর যমুনা নদীর নাব্যতা সঙ্কটের কারণে ফেরি সেবাটি তিস্তামুখ ঘাট থেকে বালাসীঘাটে স্থানান্তর করা হয়।

ইতিহাস
১৯৩৮ সালে ঢাকার সঙ্গে দেশের উত্তরাঞ্চলের রেল যোগাযোগ বৃদ্ধির লক্ষ্যে গাইবান্ধা জেলার ফুলছড়ি উপজেলায় তিস্তামুখ ঘাট ও জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জের বাহাদুরাবাদ ঘাটে যমুনা নদীতে রেল ফেরির সার্ভিস চালু করা হয়। তৎকালীন রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম এবং বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলার জামালপুর, শেরপুর, নেত্রকোনা ও কিশোরগঞ্জ জেলার সঙ্গে উত্তরাঞ্চলের বৃহত্তর রংপুর জেলার গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট, নীলফামারী, দিনাজপুর, পঞ্চগর ও ঠাকুরগাঁও জেলাসহ বিভিন্ন অঞ্চলের মধ্যে যাত্রী ও মালামাল পারাপারের জন্য যোগাযোগ গড়ে তুলতে এ ফেরি সার্ভিসটি চালু করে। এরপর থেকেই এ ঘাট দিয়ে স্বল্পব্যয়ে অল্প সময়ে যাত্রী পারাপার, কৃষিপণ্য, ডিজেল, সার সরবরাহসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় মালামাল পরিবহন করা হতো। ১৯৯০ সালের পর যমুনা নদীর নাব্যতা সঙ্কটের কারণে ফেরি সার্ভিসটি তিস্তামুখঘাট থেকে বালাসীঘাটে স্থানান্তর করা হয়।

Get Direction :

তথ্য সুএ

Google and wikipedia

Leave a Reply

Your email address will not be published.